Home /আল্লাহর নাম ও গুণাবলীর মাধ্যমে তাঁকে চিনুন /আল্লাহ ও তাঁর নাম ও গুণাবলীর মধ্যে বেঁচে থাকা /আল্লাহ অভাবমুক্ত, অভাবমোচনকারী।

আল্লাহ অভাবমুক্ত, অভাবমোচনকারী।


আল্লাহ অভাবমুক্ত, অভাবমোচনকারী।

নিশ্চয় তিনি আল্লাহ অভাবমুক্ত, অভাবমোচনকারী।

তিনি অভাবমুক্ত।

যিনি স্বয়ংসম্পূর্ণ। যার রয়েছে পরিপূর্ণ নিরঙ্কুশ অমুখাপেক্ষীতা, তাঁর যাবতীয় গুণ ও পূর্ণাঙ্গতায় কোন ধরনের ঘাটতি আসতে পারে না। অমুখাপেক্ষী হওয়া তাঁর জন্য অনিবার্য বিষয়। কারণ তাঁর অমুখাপেক্ষীতা তাঁর সত্তারই আবশ্যিক দাবি। তিনি সৃষ্টিকর্তা, শক্তিধর, রিযিকদাতা, অনুগ্রহকারী হওয়া অনিবার্য। সুতরাং তিনি কোন বিষয়ে কারও কাছে মুখাপেক্ষী নন। এক কথায় তিনি অভাবমুক্ত; তাঁর হাতেই আসমান জমীনের ভাণ্ডার। দুনিয়া ও আখেরাতের কোষাগার।

তিনি অভাবমুক্ত।

তিনি নিজ বান্দাদের থেকে অমুখাপেক্ষী, তাদের থেকে খাদ্য-পানীয় চান না। তিনি তাদরেকে এজন্য সৃষ্টি করেননি যে, তাদের মাধ্যমে সমৃদ্ধি ঘটাবেন, শক্তি সঞ্চার করবেন বা নিঃসঙ্গতা দূর করবেন। কারণ, অভাব, দূর্বলতা কিংবা নি:সঙ্গতা- এসবের কোনটিই তাঁর মাঝে নেই। বরং সৃষ্টিজীব নিজেদের খাদ্য ও পানীয় তথা সকল বিষয়ে তাঁরই মুখাপেক্ষী। আল্লাহ তা'আলা বলেন: {আমার এবাদত করার জন্যই আমি মানব ও জিন জাতি সৃষ্টি করেছি। আমি তাদের কাছে জীবিকা চাই না এবং এটাও চাই না যে, তারা আমাকে আহার্য যোগাবে।} [সূরা: আয-যারিয়াত, আয়াত: ৫৬- ৫৭।]

তিনি অভাবমুক্ত-স্বয়ংসমৃদ্ধ।

তিনি মানুষের দারিদ্রতা দূর করে তাদেরকে অভাবমুক্ত করেন এবং তাদের প্রয়োজন পূরণ করতে গিয়ে তাঁর ভাণ্ডারে কখনো কোন ঘাটতি দেখা দেয় না। তাঁর বান্দাদের তিনি ছাড়া অন্য কারো মুখাপেক্ষী হতে হয় না। যেমন হাদীসে কুদসীতে এসেছে: «যদি তোমাদের পূর্বের-পরের, মানুষ ও জিনদের সকলে একটি ভূমিতে দাড়িয়ে আমার কাছে সকলের আর্জি পেশ করতে থাকে, এবং আমি একে একে সকলের চাওয়া পূরণ করি, তবে সমুদ্রের মাঝে ডুবানো সুঁইয়ের মাথায় আসা পানি সমুদ্রের পানিকে যতটুকু কমাতে সক্ষম হবে, আমার সমৃদ্ধিতে ততটুকুই কেবল কমবে।» (-মুসলিম )

তিনি অভাবমুক্ত।

তিনি তাঁর কতিপয় বান্দাকে হেদায়াত ও বিশুদ্ধ অন্তর দান করার মাধ্যমে সমৃদ্ধি দান করেন। যার ফলে তারা আল্লাহকে চিনতে পারে এবং তাঁকে ভালোবাসে। তাঁর মহত্ত্ব ও গৌরবময়তাকে উপলব্ধি করতে সক্ষম হয়। তিনি তাদের এমন সম্পদ দ্বারা সমৃদ্ধ করে দেন যা দুনিয়ার উৎকৃষ্টতা অপেক্ষা শ্রেষ্ঠতম ও পূর্ণতম।

হে মহান সত্তা! দান যার ভাণ্ডারকে কমাতে পারে না। আপনার হালাল রিযিক দ্বারা সমৃদ্ধ করে আমাদেরকে হারাম থেকে অমুখাপেক্ষী করে দিন। কেননা নিশ্চয়ই আপনি অমুখাপেক্ষী, অভাবমোচনকারী।

নিশ্চয় তিনি আল্লাহ সমৃদ্ধশালী ও সমৃদ্ধি দানকারী।